"স্বজন হারানো জেলে পরিবারের কান্না আজও থামেনি সাগরকন্যা কুয়াকাটায়,আজ সাগর ট্রাজেডির এক যুগ" Latest Update News of Bangladesh

রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:১৫ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
Latest Update Bangla News 24/7 আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ভয়েস অব বরিশালকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] অথবা [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।*** প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে!! বরিশাল বিভাগের সমস্ত জেলা,উপজেলা,বরিশাল মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ড ও ক্যাম্পাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! ফোন: ০১৭৬৩৬৫৩২৮৩




“স্বজন হারানো জেলে পরিবারের কান্না আজও থামেনি সাগরকন্যা কুয়াকাটায়,আজ সাগর ট্রাজেডির এক যুগ”

“স্বজন হারানো জেলে পরিবারের কান্না আজও থামেনি সাগরকন্যা কুয়াকাটায়,আজ সাগর ট্রাজেডির এক যুগ”




আরিফ বিল্লাহ নাছিম,কলাপাড়া (কুয়াকাটা) প্রতিনিধি: আজ ১৯ সেপ্টেম্বর ভয়াল সাগর ট্র্যাজেডির এক যুগ। সাকরকন্যা কুয়াকাটার জনপদ ও কলাপাড়াসহ উপকূলবাসীর কাছে বেদনাদায়ক স্মরণীয় আজকের এই দিনটি। বিশেষ করে জেলে পেশার মানুষের কাছে এই দিনটি সবচেয়ে শোকাবহ ভয়াল হিসেবে পরিচিত। ২০০৬ সালের এই দিনে সাগরের ভয়াল ঢেউয়ের তা-বে প্রাণ হারায় শতাধিক জেলে। এখনও নিখোঁজের তালিকায় রয়েছে অনেক জেলের নাম।স্বজনহারা এসব পরিবারে এই দিনটিতে চলে অনেক কষ্ট আর চোখের জল জড়িয়ে।ভয়াল ওই ঝড়ে ট্রলারডুবিতে পিতা হয়েছে সন্তানহারা, স্ত্রী স্বামীহারা আর সন্তান হারিয়েছে তাদের উপার্জনক্ষম বাবাকে। এদের প্রতিটি দিন কাটে এখনও অর্ধাহার আর অনাহারে। অনেকের স্কুলগামী সন্তানের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে গেছে আর উপার্জনক্ষম মানুষটি হারিয়ে গোটা পরিবার অসহায় হয়ে গেছে। এদের খবর রাখে না কেউ। এসব পরিবারের স্ত্রী-সন্তানরা ২০০৬ সালে খাদ্য ও আবাসন সমস্যার সমাধানের দাবিতে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণে কলাপাড়া- কুয়াকাটা সড়কের মানববন্ধন, সড়ক অবরোধসহ স্মারকলিপি প্রদানের মতো বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে। এদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে এখানকার জেলে, মৎস্যজীবীসহ হাজার হাজার সাধারণ মানুষ।কিন্তু এখন পর্যন্ত কেউ কর্ণপাত করেনি।

জেলে পরিবারে এক মাত্র উপর্জনক্ষম মানুষটি পরিণত হয়েছে মাছের খাবারে। এমন হতভাগাদের মধ্যে একজন ছিলেন সেলিম মাঝি (৪৮)। লতাচাপলী ইউনিয়নের আলীপুর গ্রামের স্লুইসঘাট এলাকায় বাড়ি। ২০০৬ সালের ১৯ সেপ্টেম্বরের ঝড়ে সাগরে ট্রলারডুবিতে মারা গেছেন। সরকারী হিসাবে নিখোঁজ। লাশের দেখাও পায়নি স্ত্রী সন্তানেরা। এফবি সাগর বোটের মাঝি ছিলেন সেলিম। এ পরিবারের সবার সিদ্ধান্ত ছিল আর কাউকে সাগরে পাঠাবেন না মাছ শিকারে। কিন্তু বাপরে গিলে খাওয়া সেই সাগরে আবারও জীবিকার টানে ছুটছেন ফের এক ছেলে বশির। আর্থিক অসহায়ত্ব এদের ধাওয়া করছে প্রতিনিয়ত। ভয়াল এই ট্র্যাজেডির স্মরণে জেলে পল্লীতে স্বজনেরা করছেন বিশেষ মোনাজাত।

ওই সময় তৎকালীন চারদলীয় সরকারের চরম উদাসীনতা আর দায়িত্বহীনতার কারণে হতভাগা জেলেদের যেসব লাশ ভেসে আসে তার অনেকের শেয়াল কুকুরে খেয়ে ফেলে। ওই সময়ে দৈনিক জনকণ্ঠে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ হলে দেশব্যাপী তোলপাড় হয়। এমনকি তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টি সংসদে উত্থাপন করলে সে সময়কার সরকার প্রধান তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া জরুরী সফরে কলাপাড়ায় এসে জেলেদের ক্ষতিপূরণসহ সব সহায়তার আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু আজ পর্যন্ত দুই সরকারের কেউ এসব পরিবারের সহায়তায় কিছুই করেনি।

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *










Facebook

Shares
© ভয়েস অব বরিশাল কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed BY: AMS IT BD
Shares