গলাচিপায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন Latest Update News of Bangladesh

শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৩৫ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
Latest Update Bangla News 24/7 আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ভয়েস অব বরিশালকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] অথবা [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।*** প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে!! বরিশাল বিভাগের সমস্ত জেলা,উপজেলা,বরিশাল মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ড ও ক্যাম্পাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! ফোন: ০১৭৬৩৬৫৩২৮৩




গলাচিপায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন

গলাচিপায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন




গলাচিপা(পটুয়াখালী) সংবাদদাতা:গলাচিপা পৌরসভায় অবস্থিত উদয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমানের অপসারণ ও অবৈধ ম্যানেজিং কমিটির বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন করে অভিভাবকবৃন্দ। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় বিদ্যালয় সংলগ্ন সড়কে ঘন্টাব্যাপী এ কর্মসূচি পালিত হয়। এসময় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রতিষ্ঠানের অর্থ আত্মসাৎ, অনিয়ম, দুর্নীতি ও ক্ষমতা অপব্যবহার, সহকারী শিক্ষক ও অভিভাবকদের সাথে অসদাচারনের অভিযোগ করা হয়। অভিভাবকরা অবিলম্বে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব থেকে অপসারন করে, নতুন প্রধান শিক্ষক নিয়োগ ও পকেট ম্যানেজিং কমিটি বাতিল করে নতুন ম্যানেজিং কমিটি গঠন, বিদ্যালয়ের অর্থ আত্মসাতের তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানিয়েছে। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ওই বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য মো. আলমগীর হোসেন, বেল্লাল হাওলাদার, মোশারেফ হোসেন প্রমুখ।

অভিভাবকরা অভিযোগ করেন, গত ০২ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে শিক্ষক মিজানুর রহমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পেয়ে নানা দুর্নীতি করেও ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে বেড়ান। নিয়মিত কমিটির সকল সদস্যকে কুট কৌশলে পদত্যাগে বাধ্য করেন এবং শিক্ষক, অভিভাবক, স্থানীয় জনগণ সহ সকলের অগোচরে ভোটার তালিকা ও তফসিল প্রনয়ন ছাড়াই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান তার ছোট ভাই মো. কালাম শরীফকে গত ২৪ সেপ্টেমবর ২০১৮ তারিখ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি করে একটি পকেট কমিটি গঠন করেন।

ভাই সভাপতি হওয়ার পর আর্থিক কর্মকান্ডের জন্য কারো কাছে জবাবদিহিতা না থাকায় ওই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি, স্কুল পরীক্ষা, বোর্ড পরীক্ষা, নিবন্ধন, ফরম পূরণ, সনদ বিতরণ, প্রশংসা পত্র বিতরণের টাকা কোন রশিদ প্রদান না করে নিজেই নগদ টাকা গ্রহণ করেন। বিভিন্ন বই প্রকাশনির কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়ে নির্দিষ্ট বই পড়তে বাধ্য করে শিক্ষার্থীদের।ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান বলেন,তাদের অভিযোগ গুলো মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। স্কুলের পরিচালনা কমিটি বৈধভাবে করা হয়েছে। আমার সুনাম ও সুখ্যাতি বিনষ্ট করতে একদল মহল পায়তারা চালাচ্ছে।

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *










Facebook

© ভয়েস অব বরিশাল কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed BY: AMS IT BD