কলাপাড়ায় দখল হয়ে যাচ্ছে বড়হর পাড়া খাল Latest Update News of Bangladesh

বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৩৪ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
Latest Update Bangla News 24/7 আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি ভয়েস অব বরিশালকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] অথবা [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।*** প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে!! বরিশাল বিভাগের সমস্ত জেলা,উপজেলা,বরিশাল মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ড ও ক্যাম্পাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! ফোন: ০১৭৬৩৬৫৩২৮৩




কলাপাড়ায় দখল হয়ে যাচ্ছে বড়হর পাড়া খাল

কলাপাড়ায় দখল হয়ে যাচ্ছে বড়হর পাড়া খাল




তানজিল জামান জয়, কলাপাড়া(পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার মহিপুর থানার বড়হর পাড়া খাল বাঁধ দিয়ে পুকুর ঘের তৈরি করে দখল করে নেয়া হচ্ছে। ভ’মি অফিসের একশ্রেনীর অসাধু কর্মচারীর সহায়তায় স্থানীয় প্রভাবশালী চক্র ৬/৭ বছর ধরে ফ্রি স্টাইলে দখল করে নিচ্ছে খালটি। এতে বর্ষায় দেখা দিচ্ছে জলাবদ্ধতা। শুকনো মৌসুমে চাষের পানির তীব্র সংকট। বাড়ছে লবনাক্ততা। খালটি দুটি ইউনিয়নের ১১টি গ্রামের মানুষের জন্য আর্শীবাদ হলেও বর্তমানে র্দুভোগের কারন হয়ে দাঁিড়য়েছে।
স্থানীয়রা জানায়, ধুলাসর ও লতাচাপলী ইউনিয়নের এগারটি গ্রামের প্রায় ২২ হাজার মানুষের কৃষি কাজসহ বর্ষা মৌসুমের পানি নিষ্কাসনের জন্য রড়হর পাড়া খালের উপড় নির্ভরশীল।

বর্ষা মৌসুমে অতিরিক্ত পানি এ খাল দিয়ে নেমে যায়। মিষ্টি পানির সংরক্ষনের ফলে শুস্ক মৌসুমে চাষাবাদে সুফল বয়ে আনে। কিন্তু ৬/৭ বছর পূর্বে সাবেক ইউপি সদস্য শাহ আলম ওরফে সাহা মেম্বর তার বাড়ির সামনের অংশসহ খালটির উৎসমুখে বাঁধ দিয়ে তৈরি করেন কয়েকটি মাছের ঘের। তার দেখা দেখি তুলাতলী গ্রামের খলিল, চুন্নু, ছগির, আবদুল, আবু মিয়াসহ অনেকেই নামেন খাল দখলের মহোৎসবে। তৈরি করছেন মাছের ঘের, পুকুর।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার ধুলাসর ইউনিয়নের তুলাতলী স্লুইজ গেট থেকে শুরু হয়েছে বড়হরপাড়া খালটি। থৌপাড়া, নতুনপাড়া, বড়হরপাড়া, গঙ্গামতি, আসালতপাড়া, মম্বিপাড়া, মুসল্লীয়াবাদ, হোসেনপাড়া, মি¯্রীপাড়া, তুলাতলী গ্রাম হয়ে প্রায় সাত কিলোমিটার দীর্ঘ খালটি শেষ হয়েছে লতাচাপলী ইউনিয়নের কুয়াকাটা ঘোজা এলাকায়। খালটির পানি প্রবাহের উৎসমুখ তুলাতলী সুইজ গেট এলাকার দু’পাড়ে বাঁধ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে অন্তত: পঞ্চাশটি মাছের ঘের এবং পুকুর। ভ’মি অফিস থেকে বন্দোবস্ত নিয়ে খাল পাড় দখল করে তৈরি হয়েছে বসতভিটা।

চলছে বাঁধ দিয়ে পুকুর তৈরির চেস্টা। এভাবে দখলের ফলে খালের প্রশস্ততা অবশিস্ট রয়েছে মাত্র এক চতুর্থাংশ। শেষ প্রান্ত কুয়াকাটা ঘোজা এলাকায় পেতে রাখা হয়েছে অসংখ্য ক্ষুদ্র ফাঁসের নিষিদ্ধ জাল। এতে পানি প্রবাহ বাঁধাগ্রস্থ হয়ে খালটির গভীরতা কমে এসেছে এক তৃতীয়াংশে। বড়হরপাড়া গ্রামের কৃষক ওমর ফারুক জানান, মাছ চাষের সুবিধার্থে ঘের ও পুকুর মালিকরা শুস্ক মৌসুমে খালে লবন পানি প্রবেশ করায়। ফলে মাটিতে বেড়ে যায় লবনাক্ততা। দেখা দেয় মিস্টি পানির সংকট। এত প্রায় পাঁচ হাজার কৃষকের রবি মৌসুমে কৃষি কাজ চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

অভিযুক্ত সাবেক ইউপি সদস্য শাহ আলম ওরফে সাহা মেম্বর জানান, খালে বাঁধ দিয়ে মাছের ঘের তৈরি করা অবৈধ কাজ। তবে সরকার চাইলে তিনি খালের দখল ছেড়ে দিবেন। লতাচাপলী ইউপি চেয়ারম্যান আনসার উদ্দিন মোল্লা বলেন, অবৈধ দখলদারের উচ্ছেদ করে দ্রুত খালটি খননের মাধ্যমে প্রশস্থ এবং গভীর করা প্রয়োজন। জলাবদ্ধতা দুরীকরন ও রবিশষ্যসহ বোরো চাষের সুবিধার্থে সস্লইজ গেট বা জলকপাট পরিচালনার দ্বায়িত্ব স্থানীয় প্রকৃত কৃষকদের হাতে দেয়া উচিৎ।

কলাপাড়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনুপ দাস বলেন, খুব দ্রুত অবৈধ দখলদারীদের বিরুদ্ভে ব্যবস্থা নেয়া হবে। অবৈধ দখলদারীত্ব উচ্ছেদ করে বড়হর পাড়া খালটি মুক্ত করা হবে। যাতে কৃষকসহ সাধারন মানুষ এটি ব্যবহার করতে পারে।

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *










Facebook

Shares
© ভয়েস অব বরিশাল কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed BY: AMS IT BD
Shares